এত মানুষের ভালোবাসা পেয়ে বিস্মিত ক্যাপ্টেন ফ্যান্টাস্টিক


বিসিবি সভাপতি আকবর আলী

বাংলাদেশের ক্রিকেটে হিরন্ময় অধ্যায়ের জন্ম দিয়েছে যুবারা। প্রথমবার আইসিসির বৈশ্বিক কোনো টুর্নামেন্টে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। যা দেশবাসিকে গৌরাবান্বিত করেছে। গোটা দেশই আকবর আলীদের ফেরার অপেক্ষায় ছিল। বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিকালে বিমানবন্দরে ফেরার পর থেকেই সেখানেই জড়ো হয় হাজার হাজার উৎসুক জনতা। তারা সবাই এসেছিলেন, বিশ্বজয়ী সদস্যদের এক নজর দেখতে। বিমানবন্দর থেকে মিরপুর-রাস্তার দুই ধারে সারি সারি জনতা দাঁড়িয়ে অভিবাদন জানিয়েছে আকবরদের।

দর্শক-সমর্থকদের এমন উচ্ছ্বাস দেখে রীতিমতো বিস্মিত অধিনায়ক আকবর। মিরপুরে কেক কেটে উদযাপন করার পর সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ যুব দলের অধিনায়ক বলেন, ‘দেশে ফেরার পর কিছু একটা হবে জানতাম। কিন্তু এমন সাড়া পড়বে ভাবিনি। যা হয়েছে, যে সাড়া পড়েছে, যে পরিমাণে ভালোবাসায় সিক্ত হলাম, উল্লাস-উচ্ছ্বাস দেখলাম, রাস্তায় অসংখ্য মানুষের ভিড়- এটা অবিশ্বাস্য। এতটা ভাবিনি। একদমই অন্যরকম লাগছে। আমার বিশ্বাস- এই অর্জন এবং সর্বস্তরের মানুষের ভালোবাসা এবং আবেগ উচ্ছ্বাস ও সমর্থন ক্রিকেটকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

বিমানবন্দর থেকে মিরপুরে পৌঁছানোর পর ফুল দিয়ে বরণ করে নেওয়া নয় আকবরদের। পরে বিসিবি কর্তাদের সঙ্গে ছোট একটা সভা করে মাঠে ঢোকেন তারা। এখানেও ছিল লাল গালিচা। গ্যালারির ভিআইপি স্ট্যান্ডের নিচের অংশ ছিল ভক্ত-সমর্থকে পরিপূর্ণ। কয়েক জন ক্রিকেটারের পরিবারের সদস্যরা এসেছিলেন মাঠে। মাঠে বানানো অস্থায়ী মঞ্চে বিসিবি সভাপতিকে নিয়ে কেক কাটেন ক্রিকেটাররা। এ সময় আতশবাজি পোড়ানো হয় স্টেডিয়ামে।

এসএম/আওয়াজবিডি

ads