বগুড়া-১ আসনে জাকির, যশোর-৬ আসনে আজাদ, চসিকে প্রার্থী শাহাদাত

তিন উপনির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী চূড়ান্ত


জাকির আজাদ শাহাদাত

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মহানগর সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন মনোনয়ন দিয়েছে বিএনপি। অপরদিকে বগুড়া-১ আসনে একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির এবং যশোর-৬ আসনে আবুল হোসেন আজাদকে মনোনয়ন দিয়েছে দলটি।

সোমবার রাতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে পার্লামেন্টারি বোর্ডের বৈঠকের পর এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই ঘোষণা দেন।

চট্টগ্রাম সিটি মেয়র পদে ধানের শীষের মনোনীত প্রার্থী ডা. শাহাদত হোসনে চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি। তার বয়স ৫৩ বছর। ৩৪ বছর ধরে জাতীয়তাবাদী দলের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত তিনি।

মির্জা ফখরুল জানান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি অংশ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পার্লামেন্টারি বোর্ড বগুড়া-১ আসনে একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির এবং যশোর-৬ আসনে আবুল হোসেন আজাদকে মনোনয়ন দিয়েছে।

তিন মনোনীত প্রার্থীই তাদের দলের কারাবন্দি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনের অংশ হিসেবে এই নির্বাচনে তারা অংশ নিচ্ছে। তারা নির্বাচন সুষ্ঠু ও অবাধ করতে ভোটে সেনা মোতায়েনের দাবিও জানান।

বগুড়া-১ আসনের একেএম আহসানুল তৈয়ব জাকির বগুড়া জেলা বিএনপির আহবায়ক কমিটির সদস্য। বয়স ৫৪ বছর। তিনি দুই দফায় সোনাতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন।

যশোর-৬ আসনে আবুল হোসেন আজাদ কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও কেশবপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি। তার বয়স ৫৬ বছর। একাদশ নির্বাচনেও তিনি বিএনপির প্রার্থী ছিলেন।

দলের মনোনয়ন পেতে বগুড়া-১ আসনের উপ-নির্বাচনে ৯ জন এবং যশোর-৬ আসনে উপ-নির্বাচনে ৫ জন প্রার্থী আবেদন করেছিলেন।

গত ১৮ জানুয়ারি বগুড়া-১ আসনের সাংসদ আব্দুল মান্নান এবং ২১ জানুয়ারি যশোর- ৬ আসনের সাংসদ ইসমাত আরা সাদেকের মৃত্যুতে আসন দুইটি শূণ্য হয়।

নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনসহ বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনে উপ-নির্বাচনে মনোনয়ন দাখিলের শেষদিন ২৭ ফেব্রুয়ারি, মনোনয়নপত্র বাছাই ১ মার্চ, প্রার্থিতা প্রত্যাহার ৮ মার্চ, প্রতীক বরাদ্দ ৯ মার্চ এবং ভোট গ্রহন হবে ২৯ মার্চ।

বৈঠকে লন্ডন থেকে স্কাইপেতে যুক্ত হয়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সভাপতিত্বে মনোনয়ন বোর্ডে দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টান জমিরউদ্দিন সরকার, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান, সেলিমা রহমান ছিলেন।

ads