ছুটি না বাড়ানো সরকারে সবচেয়ে আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত: বিএনপি


রিজভী

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণের বিস্তার রোধে দেওয়া সাধারণ ছুটি না বাড়ানোর সরকারি সিদ্ধান্ত সবচেয়ে আত্মঘাতী বলে মনে করছে বিএনপি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে দলের মুখপাত্র রুহুল কবির রিজভী এমনটা জানান।

তিনি বলেন, ‘ছুটির নামে তথাকথিত লকডাউন তুলে নেওয়ার পদক্ষেপের মাধ্যমে সরকার কি প্রমাণ করতে চায়- করোনার থেকে তারা শক্তিশালী?’
রিজভী বলেন, ‘এই ছুটি প্রত্যাহারের মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষকে আক্রান্তের দিকে ঠেলে দেওয়া হলো। এটা সরকারের সবচাইতে বড় আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত।’

তিনি বলেন, মানুষকে বিপদে ফেলে দেওয়ার এই সিদ্ধান্ত বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্তকতা বার্তার প্রতিও সরকারের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব বলেন, ‘এই ছুটি প্রত্যাহারের জন্য করোনাভাইরাসে প্রাণহানির সকল দায় সরকারকেই নিতে হবে। ’

তিনি বলেন, ‘এখনই উপযুক্ত সময়ই ছিল কিছুদিনের জন্য হার্ড-লকডাউন কার্যকর করে বিপুল সংখ্যক মানুষকে টেস্টের আওতায় এনে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা। কিন্তু সরকার সেই পথে না গিয়ে হাঁটছে মৃত্যুর মিছিল বাড়ানোর পথে। ’

রিজভী বলেন, ‘পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে অধিক সংখ্যক টেস্ট এবং কঠোর লকডাউনের মাধ্যমে আক্রান্ত ও মৃত্যু নিয়ন্ত্রণে আনার পর লকডাউন শিথিল করেছে। ’
‘আর বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর ভীতিকর মাত্রায় প্রতিটি মানুষ যখন আতঙ্কিত-উৎকণ্ঠায়, তখন ছুটির নামে তথাকথিত লকডাউন প্রত্যাহার করা হলো’ যোগ করেন তিনি।

করোনা মহামারী মোকাবিলায় সরকারের ‘অপরিকল্পিত, দায়সারা ও দায়িত্বজ্ঞানহীন’ কর্মকাণ্ডের কঠোর সমালোচনা করেন বিএনপি মুখপাত্র।

ads