নিউইয়র্কের অর্থনীতিতে জাম্প স্টার্ট চান ক্যুমো


ক্যুমো

নিউইয়র্কের গভর্নর এন্ড্রু ক্যুমো বলেছেন, আমরা চাই যে, অঙ্গরাজ্যের অর্থনীতি আবার গর্জন করে উঠুক। তবে শুধু আকাঙ্ক্ষা থাকলেই তা সম্ভব হবে না। অর্থনীতি স্বয়ংক্রিয়ভাবে ঘুরে দাঁড়ায় না। কিন্তু এবার ঘেুরে দাঁড়ানোটা হবে ভিন্ন ভাবে, নানা প্রচেষ্টার মাধ্যমে।

তিনি বলেন, ২৭ মে তিনি ওয়াশিংটন ডিসি যাচ্ছেন। প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে তিনি অবকাঠামো উন্নয়ন পরিকল্পনার বিষয়ে কথা বলবেন। অর্থনীতিকে জাম্প স্টার্ট দিতে আরও নানা সম্ভাব্য বিষয় নিয়ে প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কথা বলবেন তিনি। গভর্নর ক্যুমো বলেন, নিউইয়র্ক 'সুপারচার্জ' রিওপেনিংয়ের জন্য প্রস্তুত। নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্য করোনাভাইরাসের সংকটকাল থেকে বেরিয়ে এসেছে। এ মুহূর্তে নিউইয়র্কের অর্থনীতিতে 'সুপারচার্জ' প্রয়োজন। মেমোরিয়াল ডের পরদিন ২৬ মে দীর্ঘ দুই মাস পর ফিরেছেন ব্যবসায়ীরা।

নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জের ওপেনিং বেল বেজে ওঠার কয়েক ঘণ্টা পরই গভর্নর ক্যুমো ফ্লোরে এসে তাঁদের স্বাগত জানিয়েছেন। ক্যুমো বলেন, মেমোরিয়াল ডেতে হয়তো আমরা সবাই মিলে সমুদ্র সৈকতে এক সঙ্গে যেতে পারছি না। তবে আমরা কোভিড-১৯ এর পৃষ্ঠা পাল্টে দিয়েছি। এখন আমরা রিওপেনিংয়ে মনোযোগ দিতে শুরু করেছি। অঙ্গরাজ্যের আরও নতুন দুটি এলাকা লং আইল্যান্ড ও মধ্য-হাডসন প্রথম ধাপে রিওপেন হওয়ার তালিকায় সংযোজিত হয়েছে।

এ মুহূর্তে অবকাঠামো উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করলে, সেটা অর্থনীতিকে চাঙা করতে সহায্য করবে। ক্যুমো নির্মাণ পরিকল্পনার একটি তালিকাও করেছেন। এতে সেকেন্ড অ্যাভিনিউ সাবওয়ে সম্প্রসারণ, লাগার্ডিয়া বিমানবন্দর বিনির্মাণ এবং হাডসন নদীর তলদেশে দিয়ে এমট্রাকের টানেল তৈরির বিষয় উল্লেখ করেন তিনি। গভর্নর বলেন, দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এসব অবকাঠামোগত নির্মাণকাজ শুরুর এখনই মোক্ষম সময়।

এদিকে আমেরিকার ট্রেজারি ও শ্রম বিভাগের অত্যন্ত সুষমভাবে প্রণোদনা, বেকারত্ব ভাতা বণ্টনের সুনাম রয়েছে। তাই এখনো যারা বেকারভাতার জন্য আবেদন করেননি, তাঁরা এর সুযোগ নিতে পারেন। লকডাউনের কারণে মার্চ মাসের প্রথম, দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে যারা কাজ না করে ঘরে বসে আছেন, যারা ডাব্লিউ-টু, সেলফ-এমপ্লয়েড অথবা কোনো প্রাইভেট মালিকের কাছে নগদে কাজ করেছেন, কিন্তু কোনো প্রমাণ নেই-তাঁরাও নির্দ্বিধায় আবেদন করতে পারেন। রেদওয়ানুল/আওয়াজবিডি

ads