ভারতে গেলেই গ্রেফতার হবেন নোবেল


নোবেল

ভারতীয় টিভি চ্যানেল জি বাংলার রিয়্যালিটি শো ‘সারেগামাপা’তে অংশ নিয়ে দুই বাংলায় পরিচিতি পান বাংলাদেশি গায়ক মাঈনুল আহসান নোবেল। সম্প্রতি বেশকিছু ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে এবং তার গোপন বিয়ে প্রকাশ্যে আসার পর তুমুল সমালোচিত হয়েছেন তিনি। এছাড়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে নিয়েও তিনি আপত্তিকর কিছু পোস্ট দিয়েছেন।

নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৫০০, ৫০৪, ৫০৫, ১৫৩ এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলাটি করেছেন সুমন পাল নামের ত্রিপুরার বিলোনিয়ার এক যুবক। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে ত্রিপুরা রাজ্যের পুলিশ জানিয়েছে, ভারতে ঢুকলেই নোবেলকে গ্রেফতার করা হবে।

গত সোমবার (২৫ মে) নোবেলের বিরুদ্ধে মামলাকারী যুবক অভিযোগের একটি প্রতিলিপি পাঠান ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ হাইকমিশন ও আগরতলা জেলার পুলিশ সুপারের কাছে। যার ভিত্ততেই ত্রিপুরার বিলোনিয়া থানায় মামলাটি দায়ের করা হয়।

সুমন পাল জানান, একজন ভারতীয় হিসেবে তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এমন কুৎসাপূর্ণ মন্তব্য মেনে নিতে পারেননি, তাই তিনি নোবেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন। এছাড়া তিনি প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এমন কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করার জন্য নোবেলের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন।

'ভারতে এলেই গ্রেফতার করা হবে নোবেলকে! ত্রিপুরায় দায়ের এফআইআর' এমনই এক শিরোনামে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন এ খবর প্রকাশ করেছে। সংবাদ প্রতিদিন লেখে, 'জনপ্রিয় বাংলা টেলিভিশন চ্যানেলের রিয়ালিটি শো ‘সারেগামাপা’র মঞ্চ থেকেই খ্যাতির শিখরে উঠতে শুরু করেছিলেন মঈনুল আহসান নোবেল। তবে শো পরবর্তী সময়ে গানের থেকে বেশি বিতর্কেই জড়িয়েছেন। কিংবদন্তিদের বিরুদ্ধে অশালীন মন্তব্য থেকে ধর্ষণের অভিযোগে বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। তারপর বাংলাদেশে ফিরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়ায় কুরুচিকর মন্তব্য করেন ওই গায়ক।

সংবাদমাধ্যমটি জানায়, 'পুলিশ সূত্রে খবর, বিতর্কিত বাংলাদেশি গায়ক নোবেলের বিরুদ্ধে সোমবার মামলা দায়ের করেছেন ত্রিপুরার বিলোনিয়ার যুবক সুমন পাল। ওই অভিযোগের একটি প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, বাংলাদেশ হাই কমিশন ও জেলার পুলিশ সুপারের কাছে। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই ভারতে প্রবেশ করলে নোবেলকে গ্রেফতার করা হবে।

নিজের অভিযোগ পত্রে ত্রিপুরার যুবক দাবি করেন, দেশের প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এহেন কুরুচিকর মন্তব্য করায় নোবেলের ভিসা বাতিল এবং তাঁর পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত করা হোক। এর আগে বিশ্ব বরেণ্য কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিরুদ্ধেও কুরুচিকর মন্তব্য করে বিতর্ক উসকে দিয়েছিলেন নোবেল।

বেশ কয়েকদিন আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে নিয়ে কটাক্ষ করে স্ট্যাটাস দেন নোবেল। এতে তিনি লিখেছিলেন ‘স্ক্যান্ডাল আমার হবে না তো হবে কার? চায়ের দোকানদার নরেন্দ্র মোদির? কে দেখবে চা-ওয়ালার স্ক্যান্ডাল? অন্যদিকে আমাকে নগ্ন দেখার মধ্যে তো বিরাট তৃপ্তি তাই না? নাহলে কি স্ক্যান্ডাল এত ভাইরাল হয়?’ এমন পোস্টের পর নেটিজেনদের সমালোচনার মুখে পড়েন নোবেল। বিষয়টি নিয়ে ভারতীয় কয়েকটি সংবাদমাধ্যম খবরও প্রকাশ করে।

যদিও বিতর্কের মুখে পড়ে গত ২৪ মে এ শিল্পী তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এক স্ট্যাটাসে ভুল স্বীকার করে লেখেন ‘মোদিজির প্রেমে এখন ইন্ডিয়া মাতাল। মোদিজি জানতে পারলে আমাকে নোবেল পুরস্কার দিতেন। যে মোদিজিকে ক’দিন আগে সবাই গণহারে গালি দিত, সেই মোদিজির আজ কত শুভাকাঙ্ক্ষী। এসব কার অবদান, তোমরা বলো? বাই দা রাস্তা, সরি মেরে ইন্ডিয়ান ভাই ও বেহেনরা। আমার স্ট্যাটাসটা দেওয়া উচিত হয়নি। মাঝে মধ্যে ভুলে যাই আমি তো ইন্ডিয়ান নই। ক্ষমা করে দিও।

এসএম/আওয়াজবিডি

ads