অর্ধ লাখ ছাড়ালো দেশের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষের সংখ্যা


quarentine

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষের সংখ্যা অর্ধ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। শুক্রবার পর্যন্ত সারাদেশে মোট ৫০ হাজার ৫৩২ জনকে হোম কোয়ারান্টিনের আওতায় আনা হয়।

অবশ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসারে তাদের মধ্যে ১৪ দিনের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পর ২০ হাজার ৮৫৫ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে আছেন ৩৯ হাজার ৬৭৭জন। গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টাইনের আওতায় এসেছেন ৩ হাজার ৩৫১ জন। একই সময়ে কোয়ারেন্টাইন থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন ৪ হাজার ২৯১ জন।

 
স্বাস্থ্য অধিদফতরের হেলথ ইমার্জেন্সি অ্যান্ড অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, হোম কোয়ারেন্টাইন ছাড়াও হাসপাতাল ও অন্যান্য স্থানে এ পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের আওতায় এসেছেন ২০৩ জন। তাদের মধ্যে ১৪৪ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। বর্তমানে আছেন ১৬২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের আওতায় এসেছেন ২৩ জন। একই সময়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের একজন কর্মকর্তা জানান, সারাদেশে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারান্টাইনের জন্য ৩৬৩টি প্রতিষ্ঠানকে প্রস্তুত করা হয়েছে এবং এ প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে ১৮ হাজার ৯২৩জনকে তাৎক্ষণিক সেবা প্রদান করা যাবে। এসব প্রতিষ্ঠানের সেবা দান করার জন্য ১ হাজার ১২৩ জন চিকিৎসক, ১ হাজার ৫৭৫ জন নার্স এবং অন্যান্য ১হাজার ২৮৪ জনসহ মোট ৩ হাজার ৯৮২ জন সেবাদানকারী প্রস্তুত রয়েছেন।

 
হোম কোয়ারেন্টাইন ও প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইন ছাড়াও করোনাভাইরাস আক্রান্ত সন্দেহে এ পর্যন্ত ৩৩১ জনকে আইসোলেশন ওয়ার্ডে রাখা হয়। ইতোমধ্যে ২৮৪ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন। বর্তমানে আইসোলেশনে রয়েছেন ৪৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশনের আওতায় এসেছেন ১০ জন এবং ছাড়পত্র পেয়েছেন ৭ জন।

আরএইচ/আওয়াজবিডি

ads